আশরাফুল বললেন, মেয়েরা আরো ভালো কিছুর যোগ্য

Slider right খেলা

পাকিস্তানকে হারিয়ে ওয়ানডে বিশ্বকাপে প্রথম জয় তুলে নিয়েছেন বাংলাদেশের মেয়েরা। ২৩ বছর আগে ১৯৯৯ বিশ্বকাপে ছেলেরাও জয় পেয়েছিল পাকিস্তানের বিপক্ষে। প্রথম জয় স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে হলেও টেস্ট খেলুড়ে দেশ পাকিস্তানকে হারানো তখনকার পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের জন্য ঐতিহাসিক বটে। সোমবার (১৪ মার্চ) নিউ জিল্যান্ডের মাটিতে নিগার সুলতানাদের ইতিহাস গড়ার পর অনেকেই ১৯৯৯ বিশ্বকাপে ছেলেদের পাওয়া জয়ের সঙ্গে তুলনা করছেন। একই কথা বলেছেন বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক মোহাম্মদ আশরাফুল।

আজ দুপুরে শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের ট্রফি উন্মোচন অনুষ্ঠান শেষে নারীদের জয় নিয়ে আশরাফুল প্রতিক্রিয়া জানান। তার মতে বিশ্বকাপে প্রথম জয় তাৎপর্যপূর্ণ। আর সেটা যদি পাকিস্তানের মতো দলের বিপক্ষে হয় তাহলে কথাই নেই!

আশরাফুল বলেন, ‘খুবই ভালো লাগছে। মেয়েরা সবসময়ই ভালো খেলছে। তারা কিন্তু প্রথম এশিয়া কাপ জিতেছিল ভারতকে হারিয়ে। এবার বিশ্বকাপে প্রথম জয় পেল পাকিস্তানের সঙ্গে। আমরাও ১৯৯৯ বিশ্বকাপে পাকিস্তানকে হারিয়েছিলাম। ওরা (নারী দল) আরো ভালো কিছুর যোগ্য।’

বাংলাদেশ আগে ব্যাটিং করে ৭ উইকেট হারিয়ে ২৩৪ রান করে। লক্ষ্যে খেলতে নেমে ২২৫ রানে থামে পাকিস্তান। বাংলাদেশের মেয়েরা জেতে ৯ রানে। এদিকে ১৯৯ বিশ্বকাপে বাংলাদেশের দেওয়া ২২৪ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে ১৬১ রানে অলআউট হয় পাকিস্তান। আমিনুল ইসলাম বুলবুলের দল জেতে ৬২ রানে।

শুধু তাই নয়, আশরাফুল মনে করেন এই জয়ের কারণে মেয়েরা আরো সুযোগ-সুবিধা বেশি পাবে। তাদের কাঠামোগত উন্নয়ন হবে। এমনিতেও ছেলেদের তুলনায় মেয়েদের ক্রিকেট কিছুটা পিছিয়ে।

আশরাফুল বলেন, ‘যেহেতু মেয়েরা টেস্ট স্ট্যাটাস পেয়েছে, তাদের ঘরোয়া ক্রিকেট আরো উন্নত হলে আরো ভালো ক্রিকেটার বের হয়ে আসবে। বিশ্বকাপের প্রথম জয় সৌভাগ্যের বিষয়। তাও পাকিস্তানের মতো দলকে হারিয়ে। যারা ম্যানেজমেন্টে আছেন এবং খেলেছে, সবাইকে অভিনন্দন। আশা করব এই জয়ের পর মেয়েদের ক্রিকেটের কাঠামো আরো ভালো হবে। তারা যেন নিয়মিত খেলতে পারে।’

বাংলাদেশ নারী দল টেস্ট স্ট্যাটাস পেয়েছে। লাল বলের ক্রিকেটের জন্য প্রস্তুত হতে ঘরোয়া ক্রিকেটে চার দিনের ম্যাচের আয়োজন করার বিষয়ে বিসিবিকে আহ্বান করেন আশরাফুল, ‘যেহেতু টেস্ট স্ট্যাটাস পেয়েছে, তারা কবে টেস্ট খেলবে সেটার পরিকল্পনা করা উচিত। ঘরোয়া ক্রিকেটেও চার দিনের ম্যাচ খেলে যেন টেস্টের জন্য তৈরি থাকে বোর্ডের সেই চিন্তা করা প্রয়োজন।’