মেয়েকে ফিরে পেতে ‘তওবা’ করে অভিনয় ছাড়েন শাবানা

Slider right বিনোদন

বাংলাদেশি চলচ্চিত্রের সোনালী দিনের প্রথম সারির নায়িকা শাবানা। সুনিপুণ অভিনয়ের মাধ্যমে তিনি জয় করে নিয়েছেন কোটি দর্শকের মন। চার দশক ধরে অত্যন্ত প্রতাপের সঙ্গে অভিনয় করেছে বাংলা চলচ্চিত্রের জীবন্ত কিংবদন্তি এই অভিনেত্রী। সমাজ ও পারিবারিক জীবনের বহু সমস্যা ও টানাপড়েনের চিত্র তিনি তার অভিনয়ের মাধ্যমে তুল ধরেছেন। দর্শকদের কাঁদিয়েছেন, শিখিয়েছেন। পেয়েছে রেকর্ড সংখ্যক ১০ বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার।

১৯৯৭ সালে প্রথম অভিনয় ছেড়েছে নায়িকা শাবানা। অনেকেই এখনো জানেন না কেন অভিনয় ছেড়ে দিয়েছিল। হয়ত ভেবেছেন, আগের মত ছবি হিট হচ্ছে না শাবানার অথবা বুড়ো হয়ে যাচ্ছেন তিনি অথবা কেউ নিচ্ছিলেন না তাকে? এই ধরণের ভাবা আসলেই বেশ স্বাভাবিক। তবে জানেন কি, এর একটি কারণেও সিনেমা ছাড়েননি শাবানা। তাহলে কেন সিনেমা ছেড়েছেন তিনি?

এক জীবনে শাবানা যত নাম, যশ, খ্যাতি, প্রতিপত্তি যা কিছুই অর্জন করেছে সবটুকুই তার অভিনয় আর চলচ্চিত্রের কারণে। তবে হঠাৎ কেন তিনি নিজেকে এইভাবে আড়াল করে ফেললেন? এতদিন পরে এসে শাবানার পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে সেই উত্তর। শাবানা নাকি কেবল অভিনয়ই ছাড়েননি, রীতিমত ‘তওবা’ করেছিল।

ওই সময় হঠাৎ তার আমেরিকা প্রবাসী মেয়েকে কিছুতেই খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। তখন তিনি মনে মনে মানত করেন, মেয়েকে যদি ফিরে পান, তাহলে জীবনে আর কখনো অভিনয় করবেন না, এই জগৎ ছেড়ে দিয়ে ধর্ম চর্চায় মন দিবেন। মেয়েকে ফিরে পেয়ে তিনি অভিনয়, চলচ্চিত্র এবং দেশ ছাড়েন। স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন আমেরিকায়।

যে সন্তানদের জন্য শাবানা অভিনয়জীবন ছাড়লেন তারা এখন পরিণত বয়সের অধিকারী। পাট চুকিয়েছেন পড়াশোনার। বড় মেয়ে সুমী ইকবাল এমবিএ করেছেন। বিয়ে করে এখন সে পুরোদস্তুর গৃহিণী। ছোট মেয়ে ঊর্মি সাদিক হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি করেছেন। ছেলে নাহিন সাদিক রটগার্স বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স করে চাকরি করছেন।
সূত্র: দৈনিক ভোরের পাতা