নামেই মেয়াদবিহীন ডাটা, পুরোটাই ধোকা!

তথ্য-প্রযুক্তি

বহুল প্রতীক্ষিত ‘মেয়াদহীন’ মোবাইল ইন্টারনেট ডাটা প্যাকেজের যুগে প্রবেশ করেছে বাংলাদেশ। তবে, গ্রাহকরা বলছেন, নামেই মেয়াদবিহীন ডাটা, পুরোটাই ধোকা।

তারা বলেন, ডেটা প্যাকেজগুলি যতটা সহজ মনে হয়, ততটা সহজ নয়। এতে গ্রাহকরা খুব বেশি সুবিধা পাচ্ছে না। আনলিমিটেড ডেটা প্যাকেজের কথা বলা হলেও টেলিটক বাদে সকল প্যাকেজের মেয়াদ এক বছর।

মেয়াদহীন নামে যে প্যাকেজগুলো রয়েছে, তার মধ্যে গ্রামীণফোন দুটি প্যাকেজ অফার করেছে। গ্রামীণফোন ১ হাজার ৯৯ টাকায় দিচ্ছে ১৫ জিবি এবং ৫ জিবি ৪৯৯ টাকায়। রবি ১০ জিবি দিচ্ছে ৩১৯ টাকায়, বাংলালিংক দিচ্ছে ৫ জিবি ৩০৬ টাকায়। আর টেলিটক দিচ্ছে ২৬ জিবি ৩০৯ টাকা এবং ৬ জিবি ১২৭ টাকায়।

তবে টেলিটক বাদে সকল প্যাকেজের মেয়াদ এক বছর।

মেয়াদহীন মাসিক ডেটার মধ্যে শুধুমাত্র জিপির দুটি প্যাকেজ অফার রয়েছে। তবে সেগুলি দৈনিক ডেটা ব্যবহারের সীমাবদ্ধতা রয়েছে। ৩৯৯ টাকা দামের আনলিমিটেড ডেটা প্যাকের দৈনিক ব্যবহারের সীমা ১ জিবি এবং যে প্যাকের দাম ৬৪৯ টাকা সেই প্যাকের দৈনিক ব্যবহারের সীমা ২ জিবি।

অন্য তিনটি অপারেটরও শিগগিরই একই ধরনের ডেটা প্যাকেজ দেওয়া শুরু করবে বলে জানা গেছে।

মেয়াদহীন মাসিক প্যাকেজে দেওয়া ১ জিবি বা ২ জিবি এর দৈনিক সীমা আরেকটি সমস্যা। দৈনিক ব্যবহারের সীমাসহ একটি মাসিক প্যাকেজ কীভাবে মেয়াদহীন হতে পারে? প্রশ্ন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মো. মোস্তাফা জব্বারের।

জিপির প্যাকেজে ডেটার দাম তুলনামূলকভাবে বেশি হওয়ায় শুধু ভোক্তাই নয়, এসব শর্তে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন খোদ টেলিকম মন্ত্রী।

ডাটা মূল্যের সমস্যা রয়েছে। বিশেষ করে জিপির প্যাকেজের দাম গ্রহণযোগ্য নয়। জিপি বলছে যে উল্লেখযোগ্য বাজার ক্ষমতা (এসএমপি) থাকার কারণে তাদের দাম বেশি রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু এসএমপি বিবেচনা করার পরেও, তিনগুণ মূল্যের পার্থক্য অযৌক্তিক বলেন মন্ত্রী।

এসব প্যাকেজের দামও প্রতিবেশী দেশ ভারতের দামের চেয়ে বেশি।

ভারতের শীর্ষস্থানীয় মোবাইল নেটওয়ার্ক অপারেটর জিও এর একজন গ্রাহক, ২৯৯ টাকা দিয়ে এক মাসের জন্য প্রতিদিন ২জিবি ইন্টারনেট ডেটা পেতে পারেন। এছাড়াও তারা বিনামূল্যে ভয়েস কল এবং এসএমএস পান।

রবির প্রধান করপোরেট এবং নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তা মোহাম্মদ শাহেদুল আলম বলেন, প্রতি ১০০ টাকার মোবাইল টপ-আপের জন্য বাংলাদেশ সরকার ট্যাক্স বাবদ ৫৪ টাকা নেন। বিপরীতে, ভারত নেয় প্রায় ৩২ টাকা। এছাড়া ভারতে সিম বিক্রির ওপর কোনো কর নেই, যেখানে বাংলাদেশে তা ২০০ টাকা।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, যদি আমরা কাউকে ১৫ জিবি ডাটা দেই, তাহলে মনে করার কোনো কারণ নেই যে সেই পরিমাণ ডেটা ব্যবহার করতে একজন ব্যক্তির এক বছরের বেশি সময় লাগবে।

তবে বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশন (বিটিআরসি) জানিয়েছে, প্রযুক্তিগত কারণে তথ্যের বৈধতা এক বছরের জন্য রাখা হয়েছে।

প্রযুক্তিগত কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে জব্বার বলেন, টেলিকম অপারেটরদের ব্যাখ্যা অনুযায়ী, একটি সিম এক বছর অব্যবহৃত থাকলে তা আর ব্যবহার করা যাবে না। তবে মন্ত্রীর যুক্তি, কেউ টাকা দিয়ে ডাটা কিনে সিম বন্ধ করবে কেন?

তিনি আরও বলেন, টেলিটক যদি সীমাহীন বৈধতা দিতে পারে তবে অন্যান্য অপারেটরদেরও তা করতে হবে।

বিটিআরসি মন্ত্রীর নির্দেশে গ্রাহকদের কিছুটা স্বস্তি দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছিল কারণ অনেকের জন্য একটি বড় অসুবিধার কারণ হল সময়সীমার কারণে তারা যে সমস্ত ডেটা প্রদান করেছিল তা তারা ব্যবহার করতে পারে না।

মন্ত্রী বলেন, এই উদ্যোগটি মানুষের জন্য ইতিবাচক হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু এসব কারণে তা নেতিবাচক হয়ে উঠেছে।