কেবল ‘কূটনীতি’র মাধ্যমেই ইউক্রেন যুদ্ধের অবসান সম্ভব: জেলেনস্কি

Slider সারাবিশ্ব

কেবল কূটনীতির মাধ্যমেই ইউক্রেনের যুদ্ধের অবসান ঘটানো সম্ভব বলে মন্তব্য করেছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। দুই পক্ষের মধ্যে আলোচনায় বর্তমান অচলাবস্থা সত্ত্বেও তিনি এ মন্তব্য করলেন। শনিবার বিবিসি এ খবর জানিয়েছে।

ইউক্রেনের টেলিভিশনে দেয়া বক্তব্যে জেলেনস্কি জানান, তিনি বিশ্বাস করেন যে, তার দেশ যুদ্ধক্ষেত্রে বিজয়ী হতে পারে। তবে যুদ্ধের শেষ কেবল ‘আলোচনার টেবিলে’ হতে পারে বলেও মনে করেন তিনি।

জেলেনস্কি বলেন, যুদ্ধে ‘রক্তারক্তি হবে, লড়াই হবে; তবে এর শেষ হবে কেবল কূটনীতির মাধ্যমে।’ তিনি ইঙ্গিত দেন যে, কাজটি সহজ হবে না। কারণ, উভয় পক্ষই কিছু ছাড় দিতে চাচ্ছে না।

এর আগে মঙ্গলবার কিয়েভের প্রধান আলোচক মিখাইলো পোদোলিয়াক বলেন, আলোচনা স্থগিত রয়েছে। পরদিন ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ ইউক্রেনের সরকারকে দোষারোপ করেন। তিনি বলেন, কিয়েভ কর্তৃপক্ষ চায় না লড়াই-সংঘাত শেষ হোক।

রাশিয়ার সংবাদ সংস্থাগুলো বলছে, শেষ বৈঠকটি হয়েছিল প্রায় এক মাস আগে গত ২২ এপ্রিল। এরপর দুই পক্ষ আর আলোচনার টেবিলে বসেনি। এতে বড় ধরণের অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে সামরিক আগ্রাসন শুরু করে রাশিয়া। দেশটির রাজধানী কিয়েভসহ বিভিন্ন শহরে গোলা ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা শুরু করে রুশ বাহিনী।

যুদ্ধে দুই পক্ষেরই ব্যাপক প্রাণহানির খবর পাওয়া যাচ্ছে। জাতিসংঘ বলছে, যুদ্ধের কারণে ইতোমধ্যে ইউক্রেন ছেড়ে অন্য দেশে আশ্রয় নিয়েছেন ৫০ লাখেরও বেশি মানুষ। আর অভ্যন্তরীণভাবে বাস্তুচ্যুত হয়েছেন ৮০ লাখের বেশি লোক।

সূত্র জানায়, রাশিয়ার সীমান্তবর্তী ইউক্রেনের শহরগুলো ঘিরে রেখেছে রুশ সামরিক বাহিনী; হামলা চলছে ইউক্রেনের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর খারকিভেও।

রাশিয়ার গোলা ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় খারকিভ শহরেও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি ও প্রাণহানির খবর পাওয়া যাচ্ছে।