তোপের মুখে পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান

Slider সারাবিশ্ব

পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের চেয়ারম্যান ও পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান দেশটির পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজের (পিএমএল-এন) ভাইস প্রেসিডেন্ট মরিয়াম নওয়াজকে নিয়ে বেফাঁস মন্তব্য করে তোপের মুখে পড়েছেন।

পাকিস্তানের রাজনীতিবিদ, সাংবাদিক ও সুশীল সমাজের ব্যক্তিরা ইমরানকে ‘যৌনবাদী ও নারী বিদ্বেষী’ বলে অভিহিত করছেন। বার্তা সংস্থা এএনআইয়ের এক প্রতিবেদনে এসব বলা হয়েছে।

সম্প্রতি মুলতানের এক জনসভায় ভাষণ দিতে গিয়ে ইমরান খান সারগোধা জনসভার উল্লেখ করে বলেন, ‘ওই জনসভায় মরিয়াম যেভাবে আবেগ নিয়ে বারবার আমার নাম উচ্চারণ করছিল, তাতে আমি সন্দিহান। আমি তাঁকে বলতে চাই, একটু সতর্ক হও মরিয়াম। এভাবে বারবার আমার নাম নিয়ো না। এতে তোমার স্বামীর মন খারাপ হতে পারে।’

এমন মন্তব্যের পর ভীষণ তোপের মুখে পড়েছেন ইমরান খান। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ টুইটার পোস্টে লিখেছেন, মরিয়াম নওয়াজকে লক্ষ্য করে যে ভাষা ব্যবহার করা হয়েছে তা অত্যন্ত নিন্দনীয়। ইমরানের বিরুদ্ধে সমগ্র জাতির, বিশেষ করে নারী জাতির তীব্র নিন্দা জানানো উচিত।

ইমরান খানকে উদ্দেশ্য করে শাহবাজ শরিফ টুইটারে লিখেছেন, দেশ ও জাতির সঙ্গে আপনি যে অপরাধ করেছেন তা হীন হাস্যরস দিয়ে আড়াল করা যাবে না। যারা মসজিদে নববীর পবিত্রতাকে সম্মান করে না, তাদের কাছ থেকে মা বোনেরা কীভাবে শ্রদ্ধা আশা করতে পারে? শাহবাজ আরও বলেন, ‘ইতিহাসে ইমরানই প্রথম ব্যক্তি যিনি একটি দলের নেতা হিসেবে অভদ্রতার অতলে তলিয়ে গেছেন। একটি জাতি গঠনের উদ্দেশ্য নিয়ে তাঁর দল যাত্রা শুরু করেছিল, কিন্তু তার পরিবর্তে তারা জনগণের নৈতিকতা নষ্ট করছে (ইন্না লিল্লাহ…)।

নারীরা যাই পরুক ধর্ষণের জন্য দায়ী কেবল ধর্ষক: ইমরান খাননারীরা যাই পরুক ধর্ষণের জন্য দায়ী কেবল ধর্ষক: ইমরান খান
পাকিস্তানের গণমাধ্যম জিও নিউজ জানিয়েছে, ইমরানের মন্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় তীব্র ক্ষোভ জানিয়েছেন সাবেক প্রেসিডেন্ট আসিফ আলী জারদারি। তিনি ইমরানের ভাষাকে ‘অবমাননাকর ভাষা’ বলেছেন। পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) এই কো-চেয়ারম্যান বলেন, ‘যাদের বাড়িতে মা-বোন আছে তারা অন্য নারীদের বিরুদ্ধে এমন ভাষা ব্যবহার করতে পারেন না। দয়া করে রাজনীতিকে এত নিচে নামবেন না।’

পাকিস্তানের তথ্যমন্ত্রী মরিয়ম আওরঙ্গজেব টুইটারে নিন্দা জানিয়েছেন। তিনি লিখেছেন, ‘প্রত্যেক ব্যক্তির মা, বোন এবং কন্যা সম্মানের যোগ্য। এটিই ছিল জাতির উদ্দেশ্যে শহীদ বেনজির ভুট্টোর বার্তা।’