টানা দু’সপ্তাহ বৃষ্টির পর রোধ, ধান শুকাতে ব‍্যস্ত কৃষক

সারাবাংলা

মো. মনিরুজ্জামান, ভূরুঙ্গামারী (কুড়িগ্রাম) সংবাদদাতা: কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারীতে টানা দু’সপ্তহের বৃষ্টির পর রোধ ওঠেছে। আকাশ পরিস্কার। সূর্য বেশ উত্তাপ ছড়াচ্ছে। এ সুযোগে ধান শুকাতে ব‍্যস্ত হয়ে পড়েছে কৃষক-কৃষাণীরা। উপজেলার বিভিন্ন পাকা রাস্তার দু ধারে লাইন করে ধান শুকাতে দারুণ ব‍্যস্ত তারা। কোথাও বসে বা বাড়িতে খোশগল্প করে সময় কাটানোর নুন্যতম অবসর তাদের নেই। গত দুই সপ্তাহের কৃষকের কান্নার অবসান হওয়ার পথে এমনটাই বলছে কুড়িগ্রাম রাজারহাট আবহওয়া অফিস। যদিও অনেক কৃষকের ধান এখনো পানির নীচে এবং ধান পঁচে চারাগাছ গজিয়েছে।

রোববার (২২মে) সরেজমিনে ভূরুঙ্গামারী- সোনাহাট স্থলবন্দর সড়কে গিয়ে দেখা যায়, সারা রাস্তা জুড়ে ধান শুকানোর মেলা বসেছে। কেউ কেউ রাস্তার উপরে কাটা ধান মাড়াই করছেন। নারী-পুরুষ, শিশু-কিশোর, যুবক, যুবতী ও বয়ো বৃদ্ধরাও কাজ করছেন। কেউ পা দিয়ে ধান ওলটিয়ে দিচ্ছেন আবার কেউ লাইলন সুতার (নেট) জালে ধান শুকাতে দিয়েছেন।

কথা হয় উপজেলার পাইকেরছড়া ইউনিয়নের আব্দুল জলিলের সাথে তিনি জানান, পাকা রাস্তা থেকে প্রায় এক কিলো দক্ষিণে তার ৩০ মণ মাড়াই করা ধান এক সপ্তাহ থেকে ঘরে থাকায় গন্ধ ওঠেছে। খুব ভোরে ঠেলা গাড়িতে ধান পাকা রাস্তায় নিয়ে এসেছি। সারা দিন রোদ থাকলে ধান শুকিয়ে যাবে ইশনাআল্লাহ।

বঙ্গ সোনাহাট ইউনিয়নের ঘুন্টিঘর এলাকার আনিছুর রহমান জানান, তিন বিঘা জমির ধান পানির নীচে। রোদ থাকলে আজই সব ধান কাটা মাড়াই শেষের হবে।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানাগেছে, চলতি ইরি-বোরো মৌসুমে উপজেলায় ১৬ হাজাল ১৯৪ হেক্টর জমিতে ধান চাষ হয়েছে। আর ধানের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১ লাখ ৮ হাজার ৪৯২.৯২ মেট্রিক টন। টানা বৃষ্টির কারণে উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা কিছুটা কম হতে পারে বলে জানান সংশ্লিষ্ট দপ্তর।

কুড়িগ্রাম রাজারহাট কৃষি আবহওয়া পর্যবেক্ষণাগারের ভার প্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুস সবুর জানান, গত ২৪ ঘন্টায় কুড়িগ্রামে ৪১মি.মি বৃষ্টি হয়েছে। মে মাসে এখন পর্যন্ত ৫১৮ মি.মি বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। তিনি আরো জানান, মে মাসে সাধারণত এতো বৃষ্টিপাত হয় না। পশ্চিমা লঘুচাপের কারণে এটা হচ্ছে। যা আগামী ২৪ মে পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে।