নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হলে খাদ্য রপ্তানি করবে রাশিয়া

Slider

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হলে সার ও খাদ্য রপ্তানির ব্যাপারে মস্কোর পক্ষে প্রস্তুত থাকার কথা নিশ্চিত করেছেন। সোমবার তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোয়ানের সাথে ফোনালাপের সময় তিনি এ মন্তব্য করেন। ক্রেমলিনের প্রেস সার্ভিস এ তথ্য জানায়। খবর বার্তাসংস্থা তাসের।

ক্রেমলিন বলেছে, ‘পশ্চিমা বিশ্বের অপরিণামদর্শী আর্থিক ও অর্থনৈতিক নীতির ফলে সৃষ্ট আন্তর্জাতিক খাদ্য বাজারের সমস্যার আলোকে মস্কো নিশ্চিত করেছে যে, রাশিয়াবিরোধী সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হলে মস্কো উল্লেখযোগ্য পরিমাণ সার ও কৃষিপণ্য রপ্তানি করতে পারে।’

সাগর ও আজভ সাগরে জাহাজ চলাচলের নিরাপত্তা প্রদান এবং তাদের জনসীমায় মাইনের হুমকি দূর করার ওপর গুরুত্ব দিয়ে পুতিন উইক্রেন পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন।

ভ্লাদিমির পুতিন তুর্কি অংশীদারদের সাথে সমন্বয় করে সমুদ্র পথে চলাচল করা পণ্য নিরবচ্ছিন্নভাবে সরবরাহের ব্যবস্থা করতে রাশিয়ার পক্ষের প্রস্তুত থাকার কথা উল্লেখ করেন।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে সামরিক আগ্রাসন শুরু করে রাশিয়া। দেশটির রাজধানী কিয়েভসহ বিভিন্ন শহরে গোলা ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা শুরু করে রুশ বাহিনী।

যুদ্ধে দুই পক্ষেরই ব্যাপক প্রাণহানির খবর পাওয়া যাচ্ছে। জাতিসংঘ বলছে, যুদ্ধের কারণে ইতোমধ্যে ইউক্রেন ছেড়ে অন্য দেশে আশ্রয় নিয়েছেন ৫০ লাখেরও বেশি মানুষ। আর অভ্যন্তরীণভাবে বাস্তুচ্যুত হয়েছেন ৮০ লাখের বেশি লোক।

সূত্র জানায়, রাশিয়ার সীমান্তবর্তী ইউক্রেনের শহরগুলো ঘিরে রেখেছে রুশ সামরিক বাহিনী; হামলা চলছে ইউক্রেনের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর খারকিভেও। রাশিয়ার গোলা ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় খারকিভ শহরেও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি ও প্রাণহানির খবর পাওয়া যাচ্ছে।