এবার ডেনমার্কে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করল রাশিয়া

Slider সারাবিশ্ব

ফিনল্যান্ড, পোল্যান্ড, বুলগেরিয়ায় ও নেদারল্যান্ডে প্রাকৃতিক গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করার পর এবার ডেনমার্কে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করেছে রাশিয়া। রাশিয়ার দাবি অনুযায়ী মূল্য পরিশোধে রাজি না হওয়ায় এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে মস্কো। গতকাল বুধবার (১ জুন) ডেনমার্কের বৃহত্তম জ্বালানি কোম্পানি এই তথ্য নিশ্চিত করেছে।

এমতাবস্থায় ডেনিশ এনার্জি কোম্পানি ওর্স্টেড বলেছে, রাশিয়া গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করে দিলেও এখনো তারা গ্রাহকদের পরিষেবা দিতে সক্ষম হবেন। কোম্পানিটির সিইও বলেছেন, আমরা রুবলে অর্থ পরিশোধের ব্যাপারে রাশিয়ার দাবি জোরালোভাবে প্রত্যাখ্যান করেছি। আমরা এই পরিস্থিতির ব্যাপারে প্রস্তুতি নিচ্ছি। আগামীতে রাশিয়ার গ্যাস নির্ভরতা থেকে বেরিয়ে আসার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে।অন্যদিকে, গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করে দেওয়ার ঘটনাকে ব্ল্যাকমেইলিং বলে জানিয়েছে ডেনমার্কের প্রধানমন্ত্রী মেটে ফ্রেডেরিকসেন। তিনি বলেন, তার দেশের বিরুদ্ধে নেওয়া মস্কোর সাম্প্রতিক সিদ্ধান্ত সম্পূর্ণরূপে অগ্রহণযোগ্য।

মূলত ইউক্রেনে হামলার জেরে রাশিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞার তালিকা নিয়ে চড়াও হয় যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদেশগুলো। রাশিয়া থেকে জ্বালানি তেল–গ্যাস কিনবে না বলে জানিয়ে দেয় যুক্তরাষ্ট্র। যদিও তেল–গ্যাসের ওপর নিষেধাজ্ঞার পথে হাঁটেনি ইউরোপ। কারণ, রাশিয়া থেকে আমদানি করা জ্বালানির ওপর বড় নির্ভরশীলতা রয়েছে ইউরোপের অনেক দেশেুল ইউরোপের দেশগুলো থেকে নানা নিষেধাজ্ঞা এলেও জ্বালানি রপ্তানি বন্ধ করেনি রাশিয়া।

তবে একটি শর্ত জুড়ে দিয়েছে। শর্ত অনুযায়ী, ‘অবন্ধুসুলভ’ কোনো দেশ রাশিয়া থেকে গ্যাস কিনতে চাইলে দাম পরিশোধ করতে হবে রুশ মুদ্রা রুবলে। একে অবশ্য মস্কোর ‘ব্ল্যাকমেল’ বলে আখ্যা দিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)।এদিকে, ইউক্রেনে বিশেষ সেনা অভিযান পরিচালনার দায়ে পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞার প্রতিক্রিয়ায় রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বিদেশী ক্রেতাদের জন্য গত এপ্রিল থেকে রুবলে অর্থ প্রদান করার নির্দেশ দেন। তবে ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলো এই নির্দেশ মানতে রাজি না হওয়ায় একের পর এক ইউরোপের দেশগুলোতে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করছে রাশিয়া। এতে বেশ বিপাকে পড়েছে দেশগুলো। তারা এই পরিস্থিতি কাটিয়ে ওঠতে চেষ্টা করে যাচ্ছে।