ছবি তুলে ‘চাক্ষুষ প্রমাণ’ দেখালেন জার্মান চ্যান্সেলর ওলাফ শলৎজ

সারাবিশ্ব

রাশিয়ার গ্যাস রপ্তানিকারক গ্যাসপ্রম বর্তমানে নর্ড স্ট্রিম-১ পাইপ লাইন দিয়ে ধারণ ক্ষমতার মাত্র ২০ ভাগ গ্যাস পাঠাচ্ছে। এ পাইপ লাইন দিয়ে জার্মানিতে আসে রাশিয়ার গ্যাস। একটি টারবাইনের কারণেই গ্যাস সরবরাহ কমে গেছে বলে দাবি করেছে গ্যাসপ্রম।

এ টারবাইনটি কানাডায় জার্মানির সিমেন্স কোম্পানির কাছে রক্ষণাবেক্ষণের জন্য পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু পশ্চিমা দেশগুলো নিষেধাজ্ঞা দেওয়ায় সেটি কানাডায় আটকে যায়।

কিন্তু পরবর্তীতে কানাডা নিষেধাজ্ঞা শিথিল করে টারবাইনটি জার্মানির কাছে পাঠায়। এখন এটি জার্মানিতে আছে। তবে সঠিক কাগজপত্র না থাকার অজুহাত দেখিয়ে এখন টারবাইনটি ফেরত নিচ্ছে না রাশিয়া। ফলে জার্মানিতে গ্যাসও অনেক কম আসছে।

তবে টারবাইনটি এখন ব্যবহারের জন্য সম্পূর্ণ প্রস্তুত আছে বলে দাবি করেছেন জার্মানির চ্যান্সেলর ওলাফ শলৎজ। বিষয়টির প্রমাণ দেখাতে সিমেন্স কোম্পানির কাছে থাকা টারবাইনটির পাশে দাঁড়িয়ে একটি ছবিও তোলেন চ্যান্সেলর।

তিনি সাংবাদিকদের বলেছেন, টারবাইনটি এখন পুরোপুরি সচল আছে। এটি যে কোনো সময় রাশিয়ায় পাঠানো সম্ভব হবে।

তিনি জানিয়েছেন, এখন রাশিয়াকে টারবাইনটি নিতে হবে।

এ ব্যাপারে ওলাফ শলৎজ বলেন, এটি সহজ এবং পরিষ্কার: টারবাইনটি এখানে আছে এবং ডেলিভারি দেওয়া যাবে, কিন্তু কাউকে বলতে হবে ‘আমি এটি চাই।’

এর মাধ্যমে জার্মান চ্যান্সেলর জানালেন, রাশিয়া এখন আর গ্যাস কম পাঠানোর কোনো অজুহাত দিতে পারবে না। কারণ যে টারবাইনের কারণে গ্যাস কমিয়ে দেওয়া হয়েছে সেটি এখন চলে এসেছে।

তবে রাশিয়ার মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকোভ বলেছেন, সঠিক কাগজপত্র রাশিয়াকে না দেওয়ায় তারা এখন টারবাইনটি আনতে পারছেন না। সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান।