ভূরুঙ্গামারীতে কিশোরীর আত্মহত্যা, ৯ জনের নামে মামলা

Slider right সারাবাংলা

মো. মনিরুজ্জামান, ভূরুঙ্গামারী (কুড়িগ্রাম) সংবাদদাতা: কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারীতে মিষ্টি আক্তার (১৬) নামে এক কিশোরী আত্মহত্যা করার ঘটনায় ৯ জনের নামে একটি হত‍্যা মামলা দায়ের করেছে মৃত ওই কিশোরীর মা মর্জিনা বেগম। রোববার (২১ আগস্ট) সকালে উপজেলার সদর ইউনিয়নের পূর্বদেওয়ানের খামার গ্রামের ফেডারেশন পাড়ার আছর উদ্দিনের বখাটে ছেলে নাঈম সরকার (২০) এর উত্ত্যক্তের কারণে ও তার পরিবারের অপমান সইতে না পেরে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন মিষ্টি।

রোববার (২১ আগস্ট) এ ঘটনায় নিহত কিশোরীর মা মর্জিনা বেগম বাদী হয়ে ৯ জনের নামোল্লেখ করে ভূরুঙ্গামারী থানায় একটি এজাহার দায়ের করেছে। পরে নিহত কিশোরীর মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুড়িগ্রাম মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। নিহত কিশোরী ওই গ্রামের মুকুল হোসেনের মেয়ে।

নিহত কিশোরীর মামা আদম আলী জানান, মিষ্টি একটি দোকানে ঠোঙা তৈরির কাজ করতো। গত তিন/চার দিন আগে পাশের বাড়ির আছর উদ্দিনের ছেলে বখাটে নাঈম সরকার ভাগ্নি মিষ্টির ঘরে ঢুকে তাকে জড়িয়ে ধরে শ্লীলতাহানির চেষ্টা করে। পরে বিষয়টি স্থানীয় ইউপি সদস্য সোহরাব হোসেনকে জানালে তিনি মীমাংসার জন্য সালিশ বৈঠক করেন। কিন্তু বৈঠকে কোনো সমাধান না হওয়ায় আইনি পদক্ষেপ নিতে পরামর্শ দেন ওই ইউপি সদস্য। এরপর থেকে নাঈম ও তার পরিবারের লোকজন আইনি পদক্ষেপ না নেওয়ার জন্য মিষ্টির পরিবারকে হুমকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করে আসছিল।

এছাড়াও মিষ্টি বাড়ির বাইরে বের হলেই তাকে অকথ্য ভাষায় গালাগালি ও ভয়ভীতি দেখাতো। আজ সকালে মিষ্টি কাজের উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হলে নাঈম ও তার পরিবারের সদস্যরা তাকে গালাগালিসহ লাঠি দিয়ে মারার চেষ্টা করে। এই অপমান সহ্য করতে না পেরে মিষ্টি বাড়িতে ঢুকে ঘরের দরজা বন্ধ করে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে।

ঘটনার পর থেকে নাঈম ও পরিবারের লোকজন মোবাইল ফোন বন্ধ করে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে আত্মগোপন করেছে।

মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে স্থানীয় ইউপি সদস্য সোহরাব হোসেন জানান, এর আগে শ্লীলতাহানির চেষ্টার অভিযোগে এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তি ও উভয় পরিবারের লোকজনদেরকে নিয়ে সালিশি বৈঠক করা হয়েছিল। কিন্তু সেখানে কোনো সমাধান না হওয়ায় ভুক্তভোগী পরিবারটিকে আইনি পদক্ষেপ নিতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল।

ভুরুঙ্গামারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আলমগীর হোসেন জানান, মৃত কিশোরীর মরদেহ উদ্ধার করে দুপুরে ময়নাতদন্তের জন্য কুড়িগ্রাম মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় নিহতের মা নয়জনের নামেল্লেখ করে একটি এজাহার দায়ের করেছেন। আসামিদের ধরতে পুলিশ অভিযান পরিচালনা করছে।