সাকিব-সুজনের মাথার সঙ্গে খেলতে হবে: সালাউদ্দিন

Slider খেলা

বিপিএল রাউন্ড রবিন লিগে সিলেট সানরাইজার্সের জয়ের জন্য তখন প্রয়োজন ৩৬ বলে ৭১ রান। ক্রিজে ৪৫ বলে ৮৯ রান করা কলিন ইনগ্রাম ও নতুন ব্যাটসম্যান মোসাদ্দেক হোসেন। ফরচুন বরিশালের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান বোলিংয়ে আনলেন আগের ৮৮ টি-টোয়েন্টিতে মাত্র ১০ ওভার করা নাজমুল হোসেন শান্তকে। সাকিবের এক সিদ্ধান্তেই বাজিমাত।

ফুলার ডেলিভারিতে উড়িয়ে মারতে গিয়ে লং অনে ধরা পড়লেন ইনগ্রাম। পরের বলে শান্তর হাতেই ক্যাচ তুলে দেন নতুন ব্যাটসম্যান মিজানুর রহমান। জোড়া উইকেট নিয়ে ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দেন শান্ত।

বিপিএলে পুরো টুর্নামেন্ট জুড়ে এভাবেই সাকিব নানা সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করেছেন। যার ফলে শেষ হাসি হেসেছে তার দল বরিশাল। সঙ্গে আছেন দলের কোচ ‘মাস্টারমাইন্ড’ খালেদ মাহমুদ সুজনও। ট্রফির লড়াইয়ে সুজন-সাকিবের ক্রিকেট বুদ্ধিকে সবচেয়ে বড় বাধা মনে করছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। এই দুজনের মাথার বিরুদ্ধে লড়ে তৃতীয়বারের মতো ট্রফি ঘরে তুলতে চায় কুমিল্লা।

ফাইনালের আগে কুমিল্লার কোচ সালাউদ্দিন এমন বক্তব্য দিলেন, ‘আমরা কাছে মনে হয় যে বরিশালের যে শক্তি সেটা হচ্ছে সাকিব আল হাসান। সাকিবের মাথার সঙ্গে আমাদের খেলতে হবে। আমার মনে হয় যে খুবই ভালো অধিনায়কত্ব করছে এবং তার যতটুকু রসদ আছে সেটা খুব ভালভাবে ব্যবহার করছে। কারণ ও অনেক সময় যে কৌশলগুলো করে সেটা আসলে অনেক সময় ব্যাটসম্যানরা বুঝতে পারে না, সেটা যদি আমরা উতরাতে পারি তাহলে আমার মনে হয় যে ব্যাটসম্যানরা ভালো করবে।’

অন্যদিকে সুজনকে নিয়েও সালাউদ্দিন একই মন্তব্য করেছেন, ‘সুজন ভাই বিপিএলের বেশিরভাগ ফাইনালে ছিল। নিশ্চয়ই তার ভেতর কিছু আছে। তাদের দলটা কিন্তু শুরুতে ভালো করেনি। তারা খুব ভালোভাবে ফিরেছে। সুজন ভাইয়ের ট্র্যাক রেকর্ডও ভালো। অবশ্যই সুজন ভাইয়ের মাথার সঙ্গেও আমরাও খেলতে হবে।’

বিপিএলের আট আসরের পাঁচবারই ফাইনালে খেলেছে সুজনের দল। যদিও শিরোপার স্বাদ পান একবার। শিরোপা জয়ের বিচারে আবার এগিয়ে সালাউদ্দিন। তার অধীনে দুইবার কুমিল্লা ফাইনালে উঠে দুইবারই শিরোপা জেতে। এছাড়া সাকিব সর্বোচ্চ পঞ্চমবার ফাইনাল খেলতে নামবেন। তার মধ্যে দুবার চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন। একবার নিজেই নেতৃত্ব দিয়ে চ্যাম্পিয়ন করেছেন দলকে।

সালাউদ্দিন মনে করেন কুমিল্লার অধিনায়ক ইমরুল কায়েস যদি মাঠে স্নায়ুচাপ ধরে রেখে সিদ্ধান্ত নিতে পারেন তাহলে সুযোগ থাকবে তাদের জন্য, ‘আমি তো আর মাঠে খেলতে পারব না। সাকিব মাঠে খেলবে, আমি বাইরে থাকব। মাঠের ভেতর আমাদের ছেলেরা যদি সেটা বুঝতে পারে, আমার মনে হয় সেটা অনেক কাজে লাগবে। ইমরুলও খুব ভাল অধিনায়কত্ব করছে। ইমরুল যদি ঠিকমতো তার মাথা ঠান্ডা রাখে আমার মনে হয় যে আমাদেরও ভালো করার সুযোগ থাকবে।’